এই গ্যাজেটে একটি ত্রুটি ছিল

মঙ্গলবার, ১৭ ডিসেম্বর, ২০১৩

আউটসোর্সিং এর শুরুটা যেভাবে করবেন (পর্ব ২)

সবাইকে শুভেচ্ছা। আজ আমরা জানবো আউটসোর্সিং এর শুরু করার পর কি কি করতে হবে তার দ্বিতীয় পর্ব। আজ আপনাদের জন্য থাকছে আউটসোর্সিং এর আরো কিছু কাজের ক্ষেত্র সম্পর্কে আলোচনা।

ডিজাইন ও মাল্টিমিডিয়া: আউটসোর্সিং এর ডিজাইন ও মাল্টিমিডিয়া বিভাগের মধ্যে রয়েছে গ্রাফিক ডিজাইন, লোগো ডিজাইন, ইলাস্ট্রেশন, প্রিন্ট ডিজাইন, থ্রিডি মডেলিং, ক্যাড, অডিও ও ভিডিও প্রোডাকশন, ভয়েস ট্যালেন্ট, অ্যানিমেশন, প্রেজেন্টেশন, প্রকৌশল ও কারিগরি ডিজাইন ইত্যাদি কাজ।
কাস্টমার সার্ভিস:  আউটসোর্সিং এর এই বিভাগ এর মধ্যে রয়েছে কাস্টমার সার্ভিস ও সাপোর্ট, টেকনিক্যাল সাপোর্ট, ফোন সাপোর্ট, অর্ডার প্রসেসিং ইত্যাদি কাজ।
বিক্রয় ও বিপণন: আউটসোর্সিং এ বিক্রয় ও বিপণন এর মধ্যে আছে বিজ্ঞাপন, ই-মেইল বিপণন, সার্চ ইঞ্জিন অপ্টিমাইজেশন(এসইও), সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিং(এসইএম), সোস্যাল মিডিয়া মার্কেটিং(এসএমএস), জনসংযোগ, টেলিমার্কেটিং ও টেলিসেল্স, বিজনেস প্ল্যানিং ও মার্কেটিং, মার্কেট রিসার্চ ও সার্ভেস, সেলস ও লিড জেনারেশন ইত্যাদি।
বিজনেস সার্ভিসেস: এর মধ্যে আছে অ্যাকাউন্টিং, বুককিপিং, এইচআর/পে-রোল, ফাইনানসিয়াল সার্ভিসেস অ্যান্ড প্ল্যানিং, পেমেন্ট প্রসেসিং, লিগ্যাল, প্রজেক্ট ম্যানেজমেন্ট, বিজনেস কনসাল্টিং, রিক্রুটিং, পরিসংখ্যান বিশ্লেষণ ইত্যাদি। এগুলো সম্পর্কে পরে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে।
আউটসোর্সিংয়ের কাজ পাওয়ার জন্য কিছু পরিচিত এবং নির্ভরযোগ্য কয়েকটি সাইটের ঠিকানা হলঃ—www.odesk.comwww.freelancer.comwww.elance.comwww.getacoder.comwww.guru.com ইত্যাদি সাইট। এই সবগুলো সাইট একই তবে এদের মধ্যে সবচেয়ে ভালো সাইট হল oDesk। বর্তমানে ওডেস্কে বাংলাদেশ তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে। ঘণ্টাভিত্তিক কাজ করার জন্য ওডেস্কই সবচেয়ে জনপ্রিয় সাইট।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন